শীতের বিকেলে ফুলকপির পাকোড়া

শীতের বিকেলে ফুলকপির মচমচে পাকোড়া পরিবেশন করতে পারেন টমেটো সস কিংবা পুদিনা চাটনির সঙ্গে। জেনে নিন দুই স্বাদের পাকোড়া কীভাবে বানাবেন।

উপকরণ

ফুলকপি- ১টি (মাঝারি)
হলুদের গুঁড়া- প্রয়োজন মতো
মরিচের গুঁড়া- স্বাদ মতো 
পাপড়িকার গুঁড়া- ১ চা চামচ 
আদা বাটা- ১ চা চামচ
রসুন বাটা- কোয়ার্টার চা চামচ 
পেঁয়াজ কুচি- ২ টেবিল চামচ
কাঁচামরিচ- ১টি (কুচি)
ধনেপাতা- ২ টেবিল চামচ
চালের গুঁড়া অথবা কর্ন ফ্লাওয়ার- ২ টেবিল চামচ
লবণ- স্বাদ মতো 
বেকিং পাউডার- কোয়ার্টার চা চামচ
বেসন- পরিমাণ মতো 
তেল- ভাজার জন্য

প্রস্তুত প্রণালি

ফুলকপি ধুয়ে কেটে নিন। খুব বেশি ছোট টুকরা করবেন না। প্যানে পরিমাণ মতো পানি ও লবণ দিয়ে চুলায় বসিয়ে দিন। পানি গরম হলে ফুলকপির টুকরা দিয়ে দিন। ঢাকনা দিয়ে ঢেকে দিন প্যান। আশি শতাংশ পর্যন্ত সেদ্ধ করুন ফুলকপি।এর বেশি সেদ্ধ করবেন না। পানি ঝরিয়ে অর্ধেক অংশ নিয়ে নিন পাকোড়া তৈরির জন্য।

কয়াতার চা চামচ হলুদের গুঁড়া, ১ চা চামচ মরিচ গুঁড়া, ধনেপাতা কুচি, পেঁয়াজ কুচি, কাঁচামরিচ কুচি, পাপড়িকার গুঁড়া, কোয়ার্টার চা চামচ আদা বাটা, ১ টেবিল চামচ চালের গুঁড়া অথবা কর্ন ফ্লাওয়ার, লবণ দিয়ে মেখে নিন ফুলকপির টুকরা। পাপড়িকার গুঁড়া সুন্দর একটি স্মোকি ফ্লেভার যোগ করবে ও লালচে রঙ নিয়ে আসবে পাকোড়ায়। তবে এটি না থাকলে ব্যবহার না করলেও চলবে।

অল্প অল্প করে বেসন দিয়ে মাখাতে হবে সব উপকরণ। কয়েক চা চামচ বেসন ও পানি দিয়ে এমনভাবে মাখান যেন ফুলকপির চারপাশে বেসনের কোটিং লেগে থাকে। প্যানে তেল গরম করে ডুবো তেজে ভাজতে হবে পাকোড়া। মাঝারি আঁচে ভাজবেন।

আরেকটি স্বাদে পাকোড়া তৈরির জন্য একটি বাটিতে আধা কাপ বেসন নিন। ১ টেবিল চামচ চালের গুঁড়া অথবা কর্ন ফ্লাওয়ার দিন। কোয়ার্টার চামচ হলুদের গুঁড়া ও আধা চা চামচ মরিচের গুঁড়া দিন। বেকিং পাউডার ও স্বাদ মতো লবণ দিয়ে মিশিয়ে নিন।

কোয়ার্টার চা চামচ আদা ও রসুন বাটা দিন। অল্প অল্প করে পানি দিয়ে মেখে নিন। ৫ মিনিট ভালো করে ফেটে নিন। বাকি অর্ধেক সেদ্ধ করা ফুলকপি ব্যাটারে ডুবিয়ে ডুবো তেলে মচমচে করে ভেজে তুলুন।  

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *